আজ শুক্রবার, , ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং

নিজস্ব প্রতিবেদক

০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১২:৫২

‘লন্ডন কিংবা হবিগঞ্জ কোথাও তুই নিরাপদ না’, সুশান্তকে হুমকি

আমারএমপি ডটকমের চেয়ারম্যান ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্তকে হত্যার হুমকি দিয়ে তাঁর লন্ডনের বাসায় চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে। চিঠিতে সুশান্তের পরিবার-পরিজনের পরিচয় উল্লেখপূর্বক তাঁকে নাস্তিক আখ্যা দিয়ে বলা হয়েছে লন্ডন কিংবা হবিগঞ্জ কোথাও তুই নিরাপদ না। তোর পরিবারের লোক ও না।

হত্যার হুমকি সম্বলিত চিঠির ন্সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সুশান্ত দাস গুপ্ত। তিনি জানান, এরআগে অনেকবার লেখালেখির কারণে ব্যক্তিগত হুমকি পেয়েছিলাম, কিন্তু এবারকার পরিস্থিতি ভিন্ন; এবার আমার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনের পরিচয় উল্লেখ করে বলা হয়েছে দেশে-বিদেশে কোথাও নিরাপদ না থাকার কথা।

সুশান্ত বলেন, চিঠিতে আমার লেখালেখির বিষয় উল্লেখ করে আর কিছু না লিখার কথা বলা হয়েছে। এসম্পর্কে আমি লন্ডনের ফরেস্ট গেইট পুলিশকে জানিয়েছি। তারা বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখছে, এবং চিঠিটি ফরেনসিক টেস্টে পাঠিয়েছে।

তিনি জানান, তদন্তের জন্য চিঠিটি প্রকাশ না করার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার এন্ডারসন।

চিঠিতে সুশান্ত দাস গুপ্তকে নাস্তিক উল্লেখ করে স্ত্রী , সন্তানদের , কোথায় পড়ে, তাঁর বাসায় শ্যালিকা ও তাঁর স্বামী সহ দেশে পরিবারের পরিজনের পরিচয় দিয়ে লেখা হয় ,‘সময় থাকতে তোর লেখালেখি বন্ধ কর। আর যদি কোনদিন একটা শব্দ ও আমাদের নেতাকে নিয়ে লেখিস তাহলে তোর ও তোর পরিবারের মহাবিপদ আসবে। লন্ডন কিংবা হবিগঞ্জ কোথাও তুই নিরাপদ না। তোর পরিবারের লোক ও না। আশা করি তুই এই চিঠির পাওয়ার পর একটা শব্দ ও লিখবি না আমাদের নেতার বিরুদ্ধে । অন্যথায় যে কোন একজনের লাশ পেয়ে যাবি; আর বাচ্চাদের প্রতি তোর মায়া আছে তো! ইশারায় বুঝে নে। ভালো হয়ে যা।’ গত ৬ সেপ্টেম্বর চিঠিটি ডাক যোগে সুশান্ত দাস গুপ্তের বাসার ঠিকানায় পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন সুশান্ত দাস গুপ্ত।

পেশায় প্রকৌশলী সুশান্ত দাস গুপ্ত সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লেখাপড়া শেষে যুক্তরাজ্যে যান। সেখানে তিনি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত। বাংলা ব্লগিং প্ল্যাটফরম আমার ব্লগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা তিনি। জাতীয় সংসদের সদস্য ও নাগরিকদের মধ্যকার সংযোগ স্থাপনকারী ওয়েবসাইট আমারএমপি ডটকমের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও সক্রিয় তিনি।

আওয়ামী লীগে জামায়াত শিবির ও বিএনপি থেকে অনুপ্রবেশের প্রতিবাদে অনলাইন ও বিভিন্ন সভা সমিতিতে সোচ্চার দীর্ঘদিন ধরে।

উল্লেখ্য, লন্ডন আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্ত ব্রিটিশ হাউস কমন্সের সদস্যদের উদ্দেশে এক খোলা চিঠি লেখার পর লন্ডনের আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ব্যাপক আলোচনায় আসেন। ২০১৫ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর লেখা ওই চিঠিতে তিনি ব্রিটিশ পার্লামেন্ট সদস্যদের প্রতি বিএনপি যাতে স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতে ইসলামির সঙ্গ ছেড়ে সুস্থ গণতান্ত্রিক রাজনীতি করে সে ব্যাপারে ব্রিটিশ সরকারকে চাপ দিতে অনুরোধ জানিয়েছিলেন। সুশান্তের ওই চিঠির পর একই বছরের নভেম্বরে তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হোগো সোয়ার চিঠির জবাব দেন।

জবাবে ব্রিটিশ মন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশের বিরোধী পক্ষের সাথে সন্ত্রাসবাদের যোগ আছে কিনা এ ব্যাপারে আমরা অবগত নই। জনস্বার্থের বিরোধী কোন কর্মকাণ্ডে কাউকে জড়িত থাকার তথ্য পেলে যুক্তরাজ্য সরকার তা গুরুত্ব দিয়ে দেখে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত