আজ শুক্রবার, , ২০ অক্টোবর ২০১৭ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

০৭ অক্টোবর, ২০১৭ ১৯:১৫

ডেইজি ও কিমকে নিয়ে নিউইয়র্কে পান্থজনের সভা

উচ্ছ্বাস ছিল, উল্লাস ছিল। ছিল প্রাণের মানুষের স্বদেশ বিনির্মাণ নিয়ে ভালবাসার কথোপকথন। ছিল প্রত্যয় আর অঙ্গীকারের উচ্চারণের সাথে সুরের মূর্ছনা। কবিতার ভাবালুতা।

বৃহস্পতিবার (৫ অক্টোবর) তরুণ রাজনীতিবিদ আলেয়া সরওয়ার ডেইজি ও পরিবেশ আন্দোলনের সংগঠক আব্দুল করিম কিমকে নিয়ে জমে উঠেছিল নিউইয়র্কের পান্থজন সন্ধ্যা।

একজন রাজনীতির পথ ধরে নগর সুরক্ষায় কাজ করছেন। অন্যজন নাগরিকদের মুখপাত্র হয়ে দেশের পরিবেশ প্রতিবেশ নিয়ে লড়ে যাচ্ছেন। দু'জনেই ব্যস্ততম নিউইয়র্ক নগরীর ব্যস্ত অতিথি। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র আলেয়া সারোয়ার ডেইজি ব্যক্তিগত সফরে যুক্তরাষ্ট্র এসেছেন। আর আব্দুল করিম কিম এসেছিলেন জালালাবাদ বিশ্ব সিলেট সম্মেলনের অতিথি হয়ে।

জামাইকার পরিণীতা পার্টি সেন্টারের হলরুমে নিউইয়র্কের সদা প্রাঞ্জল পান্থজন, লেখক গীতিকার ইশতিয়াক রুপু এক অনানুষ্ঠানিক আনুষ্ঠানিকতায় সবাইকে আমন্ত্রণ জানান। ভরসা রাখার মত স্বদেশের দুই অতিথিকে সতেজ সন্ধ্যায় পরিচয় করিয়ে দেন সাংবাদিক ইব্রাহীম চৌধুরী।

তিনি বলেন, দেশে প্রথমবারের মতো নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত ‘উইমেন্স হলিডে মার্কেট’ প্রতিষ্ঠায় মূল ভূমিকায় থাকা ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে প্যানেল মেয়র আলেয়া সারোয়ার ডেইজি সিলেটের কন্যা। বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর। সিলেটের গোলাপগঞ্জের একটি সম্ভ্রান্ত ও রাজনৈতিক পরিবার থেকে ওঠে আসা ডেইজি রাজনীতির বাইরে খেলাধুলা ও সঙ্গীতচর্চা করেন।

আব্দুল করিম কিম গত দুই দশক থেকে নাগরিক আন্দোলনে যুক্ত। সুশাসন প্রতিষ্ঠা, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণ ও দেশের পরিবেশ প্রতিবেশ রক্ষায় আব্দুল করিম কিম সিলেটে গুরুত্বপূর্ণ একজন নাগরিক সংগঠক। সিলেটের নদ-নদী, পাহাড়-টিলা, বনাঞ্চল, হাওড়-জলাশয় রক্ষায় কিম নাগরিক ভ্যানগার্ড। আন্তর্জাতিক সংগঠন ওয়াটারকিপার এলায়েন্স আব্দুল করিম কিমকে ২০১৪ সাল থেকে সুরমা নদীর রিভার ওয়াটারকিপার হিসাবে মনোনীত করে।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সিলেট শাখার সাধারণ সম্পাদক হিসাবে পরিবেশ আন্দোলনে, সংক্ষুব্ধ নাগরিক আন্দোলন সিলেটের সমন্বয়ক হিসাবে গণতন্ত্র ও সুশাসন প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে এবং সিলেটে গণজাগরণ মঞ্চ প্রতিষ্ঠায় মূল নেতৃত্বে থেকে কিম নাগরিক সংগঠক হিসাবে নিজেকে অনন্য মাত্রায় নিয়ে গেছে।

তিনি প্যানেল মেয়র ডেইজি ও পরিবেশ আন্দোলনের সংগঠক কিমকে স্ব-স্ব অবস্থান থেকে ব্যক্তিগত লাভের ঊর্ধ্বে উঠে ফেলে আসা স্বদেশ সুরক্ষায় লড়ে যাওয়ায় জন্য প্রবাসীদের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান।

পান্থজনের সভায় সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে প্যানেল মেয়র আলেয়া সারোয়ার ডেইজি বলেন, আমি রাজনীতিবিদ হতে চাই। সত্যিকারের অর্থে মানুষের ভালোবাসার জন্য, গণমানুষের কাজের জন্য নিজেকে বিলিয়ে দিতে চাই। তিনি আরো বলেন, আমার পথ চলায় কখনো স্বজনদের মাথা হেট হবে না, এ আমার প্রত্যয়।

পরিবেশ আন্দোলনের সংগঠক আব্দুল করিম কিম বলেন, এর আগেও আমেরিকায় এসেছি। এসে এগিয়ে যাওয়া বিশাল দেশ দেখে অভিভূত হই। বন্ধুরা,পরিবার, স্বজনরা টানেন যেন থেকে যাই।

কান্না ভেজা কণ্ঠে আব্দুল করিম কিম বলেন, আমরা সবাই দেশ ছাড়লে দেশের জন্য ছোট বড় কাজগুলো কে করবে? সবার জন্য বাসযোগ্য একটি দেশ গঠনে কিছু মানুষকে দেশে থাকতেই হবে। এ ভাবনায় নানা সুযোগ পেয়েও দেশ ছাড়তে পারেননি, জানালেন আব্দুল করিম কিম।

পান্থজন সভায় আলেয়া সরোওয়ার ডেইজী এবং আব্দুল করিম কিম গান গান। মুগ্ধ দর্শক স্রোতার অনুরোধে তাদের বক্তৃতা নয়, গানের পাইলা দীর্ঘ হলো।

দুই আলোকিত স্বজনকে নিয়ে সভায় শুভেচ্ছা জানান, ফেরদৌস সাজেদীন, আহমাদ মাযহার, হূমায়ূন কবির ঢালী, শিরীন বকুল, হেলিম উদ্দিন আহমেদ, মাজেদা উদ্দিন, দর্পণ কবির প্রমুখ।

পান্থজন সন্ধ্যায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, এবাদ চৌধুরী, আশরাফুল নওশাদ, মিনহাজ আহমদ, আব্দুল মন্নান মৃধা, সেলিনা আখতার, শাহানা বেগম, জাহাঙ্গীর আহমেদ রুবেল, লায়লা শিপা, মাহবুব সুন্নাহ, নাসিমা সুলতানা, শাহীনা বেগম, সাকিফ চৌধুরী, সুমাইয়া চৌধুরী, সৈয়দ লিটু প্রমুখ। ইশতিয়াক রুপুর আপ্যায়নের মাধ্যমে পান্থজনের অনানুষ্ঠানিক অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত