আজ বুধবার, , ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ইং

দেবকল্যাণ ধর বাপন

১৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৩:৪৩

বাঙালির উৎসব পৌষ সংক্রান্তি

    পৌষ তোদের ডাক দিয়েছে , আয় রে চলে , আয় আয় আয়।
    ডালা যে তার ভরেছে আজ পাকা ফসলে, মরি হায় হায় হায়॥
    হাওয়ার নেশায় উঠল মেতে দিগ্বধূরা ধানের ক্ষেতে--
    রোদের সোনা ছড়িয়ে পড়ে মাটির আঁচলে, মরি হায় হায় হায়॥

বাংলা পঞ্জিকার হিসেবে পৌষের শেষ দিন মকর সংক্রান্তি বা পৌষ সংক্রান্তির দিন। বাংলাদেশের নির্ধারিত বাংলা বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী যদিও আজ রোববার মাঘের প্রথম দিন। কিন্তু সনাতনী বাংলা পঞ্জিকা অনুযায়ী আজ পৌষ সংক্রান্তি।

পৌষ সংক্রান্তি বাঙালি সংস্কৃতিতে একটি বিশেষ উৎসবের দিন। বাংলা পঞ্জিকা বর্ষ অনুযায়ী পৌষ মাসের শেষ দিনে পৌষ সংক্রান্তি পালিত হয়। আর পৌষ-পার্বণ মানেই বাঙালির ঘরে ঘরে পিঠা উৎসবের ধুম। বাংলা বর্ষপঞ্চি না, বরং বাংলা পঞ্জিকা অনুযায়ী আজই বাংলাদেশের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ঘরে পালিত হচ্ছে পৌষ সংক্রান্তি।

প্রাচীনকাল থেকেই এ দিনটিতে গ্রামাঞ্চলে বসে মেলা, ঘরে ঘরে চলে নতুন চালের পিঠা-পায়েসের আয়োজন। পৌষ সংক্রান্তি ঘিরে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা নানা আচার-অনুষ্ঠান পালন করলেও ‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’ ধারণায় বেড়ে ওঠা বাঙালি জাতির কাছে আজ এটি সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে।  মকর সংক্রান্তি নতুন ফসলের উৎসব ছাড়াও সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কাছে ‘উত্তরায়ণের সূচনা’ হিসেবে পরিচিত। একে অশুভ সময়ের শেষ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।

এদিন সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ঘরে ঘরে আয়োজন করা হয় নানা রকম খাবার। সংক্রান্তির দিনে বাংলার প্রতিটি ঘরেই গৃহিণীরা নতুন চালের বিভিন্ন নকশা ও সুস্বাদু পিঠে তৈরি করেন।

তবে বর্তমানে ব্যস্ত জীবনে পিঠে তৈরির সময় বার করা অনেকের কাছেই কঠিন হয়ে পড়েছে । তাই পিঠের স্বাদ নেওয়ার জন্য শরণাপন্ন হতে হয় নামী রেস্তোরাঁ বা মিষ্টির দোকানের।

কিন্তু এই পিৎজা বার্গারের যুগেও পিঠে পুলি আছে সেই পিঠে পুলিতেই। মায়ের হাতের তৈরি পিঠে পুলি আজও আদি ও অকৃত্রিম, কারণ তাতে মেশানো থাকে আদর, স্নেহ, ভালোবাসার স্পর্শ।

এদিকে বর্তমানে এ উৎসবে লেগেছে আধুনিকতার ছোঁয়া। এদিন সন্ধ্যার পর থেকেই দেশের বিভিন্ন স্থানে শুরু হয়ে যায় আতশবাজি ও ফানুস উড়ানো। সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত এসব এলাকায় চলে আতশবাজির খেলা। সংক্রান্তিতে কোথাও কোথাও আবার শ্বশুরবাড়ি থেকে জামাইদের নাটাই, বাহারি ঘুড়ি উপহার দেওয়া এবং পিঠার ডালা পাঠানো একটি রেওয়াজ। শ্বশুরবাড়ি থেকে ডালা হিসেবে আসা ঘুড়ি, পিঠা আর অন্যান্য খাবার বিলি করা হয় আত্মীয়-স্বজন এবং পাড়ার লোকদের মধ্যে।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত