আজ সোমবার, , ২১ আগস্ট ২০১৭ ইং

সিলেটটুডে ডেস্ক

১১ আগস্ট, ২০১৭ ১৬:৫৪

আইন কমিশনের চেয়ারম্যানের অপসারণের দাবি বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের

আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এ বি এম খায়রুল হক

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে মন্তব্যের জন্য বাংলাদেশ আইন কমিশনের চেয়ারম্যানের পদ থেকে সাবেক প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হককে অপসারণ ও তার গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছে বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম।

সেই সঙ্গে ওই রায় নিয়ে মন্ত্রীদের বক্তব্যের প্রতিবাদ ও নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরিবিধির গেজেট শিগগিরই প্রকাশের দাবিতে আগামী রবি, বুধ ও বৃহস্পতিবার তিন দিনের বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে সংগঠনটি।

শুক্রবার (১১ আগস্ট) ঢাকার নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন ফোরামের মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন।

প্রত্যেক জেলা বারে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের নেতাকর্মীদের এই কর্মসূচি পালনের আহ্বান জানান খোকন। তিনি বলেন, যারা আইনের শাসনের বিশ্বাস করেন, যারা সংবিধানে বিশ্বাস করেন, যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেন তারা যেন এই কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন।

সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হকের সমালোচনা করে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক বলেন, সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক সাহেব তিনি তার ত্রয়োদশ সংশোধনী বাতিলের রায়ে বলেছেন যে, বিচারপতিদের অবসরে যাওয়ার পরে কোনো সরকারি দায়িত্ব নেওয়া উচিৎ নয়। তিনি নিজেই নিজের রায় ভঙ্গ করে আজকে আইন কমিশনের চেয়ারম্যান হয়েছেন।

মাহবুবউদ্দিন খোকন বলেন, সংবিধানের ১৪৮ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী যেসব সাংবিধানিক পদ আছে সেগুলোর শপথের কথা বলা আছে। আইন কমিশনের চেয়ারম্যানের শপথের কোনো বিধান নেই। চেয়ারম্যান প্রজাতন্ত্রের একজন ‘কর্মচারী মাত্র’।

“প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে তার বক্তব্য দেওয়ার ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা আছে, কোড অব কনডাক্ট আছে। আইন কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে খায়রুল হক সাহেবেরও কোড অব কনডাক্ট আছে। তিনি কোড অব কনডাক্ট অনুযায়ী সাংবাদিক সম্মেলন করতে পারেন না, তিনি চাকরির শর্ত ভঙ্গ করেছেন।”

এ কারণে তাকে অপসারণের পাশাপাশি গ্রেপ্তারের দাবি জানানো হয় জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সংবাদ সম্মেলনে।

সাবেক প্রধান বিচারপতি খায়রুল হক বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে এই রায়কে ‘পূর্ব ধারণা প্রসূত’ হিসেবে বর্ণনা করে প্রধান বিচারপতির বিভিন্ন পর্যবেক্ষণের সমালোচনা করেন। আর আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, মামলার ‘ফ্যাক্ট অব ইস্যুর’ সঙ্গে সম্পর্কিত নয় এমন ‘অনেক অপ্রাসঙ্গিক কথা’ প্রধান বিচারপতি তার রায়ে বলেছেন।

বিএনপিপন্থি আইনজীবী নেতা ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন বলছেন, রায়ের সমালোচনা করে আইন কমিশনের চেয়ারম্যান সুপ্রিম কোর্টকেই ‘বিতর্কিত করেছেন’।

“ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের বিষয়ে বক্তব্য দিয়ে তিনি সুপ্রিম কোর্টকে হেয় করেছেন বলে আমরা মনে করি। সরকারের কয়েকজন মন্ত্রীও সুপ্রিম কোর্টের রায়ের সমালোচনা করছেন। এভাবে বক্তব্য রেখে মাননীয় মন্ত্রীরা শপথ ভঙ্গ করেছেন, তাদের এই পদে থাকার কোনো অধিকার নেই বলে আমরা মনে করি। সেজন্য আমরা এই কর্মসূচি দিয়েছি।”

অন্যদের মধ্যে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবুল খায়ের ভুঁইয়া, যুগ্ম মহাসচিব হারুনুর রশীদ, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব সানাউল্লাহ মিয়া সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মন্তব্য

আলোচিত