আজ বুধবার, , ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ইং

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক

০৭ ডিসেম্বর, ২০১৬ ১৯:১৭

আমি ছিলাম তাঁর স্নেহধন্য ছোটভাই

সদ্যপ্রয়াত প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহবুবুল হক শাকিলকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম। ফেসবুকে দেওয়া এক স্ট্যাটাসে শাকিলকে নিয়ে নিজের স্মৃতি ও তাঁর আন্তরিকতার বিষয়টি তুলে ধরেন মনিরুল।

মঙ্গলবার রাজধানীর একটি রেস্টুরেন্টে রহস্যজনকভাবে মারা যান শাকিল। যিনি রাজনীতির পাশাপাশি কবিতাও লিখতেন।

শাকিলকে স্মরণ করে বুধবার ফেসবুকে মনিরুল ইসলাম লিখেন-

খুব যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল তাও নয়, হল কিংবা ডিপার্টমেন্ট ছিল ভিন্ন। কিন্তু তাঁর কণ্ঠে যখন স্লোগান উচ্চারিত হতো এবং অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ বা মধুর ক্যান্টিনের সামনে মিছিলোত্তর কিংবা মিছিলপূর্ব সমাবেশে তাঁর বক্তৃতা শুনতাম ভীষণ মুগ্ধ হতাম!

শিক্ষাজীবন শেষে কিংবা কর্মজীবনের প্রথম কয়েকবছরে তাঁর সাথে আমার বিশেষ কোন স্মৃতি নেই!

২০০৩ সালের প্রথম দিক থেকেই তাঁর সাথে আবার যোগাযোগ গড়ে ওঠে। প্রফেশনাল হ্যাজার্ডের বিষয়ে কখনো কখনো কথা হতো তবে দেখা হয়েছে খুবই কম। ২০০৭ এ ঢাকায় বদলী হয়ে গেলাম, পাথর সময় কিন্তু যোগাযোগ ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠে।

তারপর থেকেই আমি ছিলাম তাঁর স্নেহধন্য ছোটভাই।

কীইবা এমন বয়স, এক দু'বছরের বড় কিন্তু আচরণে ছিলেন একেবারেই মুরুব্বী। সেভাবে কখনো প্রয়োজন পড়েনি তবে সব সময়ে জানতাম যেকোনো প্রয়োজনে অকপটে এগিয়ে আসবেন সেই বড়ভাই।

দেখা হলেই বলতেন, 'বউমা কেমন আছে রে?' টেলিফোন কথোপকথনের স্মৃতিই আমার বেশী। এতো আন্তরিকভাবে সম্বোধনের সম্পর্ক আমার হাতে গোনা।

গতকাল টেলিভিশনের স্ক্রলে যখন সংবাদটি প্রথম দেখলাম বুঝতেই পারছিলাম না কি করবো! প্রথমে ভাবলাম যাব না! তাঁর যে স্মৃতি আমার হৃদয়ে আছে সেটিই ধারণ করবো, সে স্মৃতি নষ্ট করবো না! কিন্তু পারলাম না, শেষ পর্যন্ত পেশাগত কারণেই যেতে হলো।

গত ২১ বছরে একই কারণে অসংখ্য মৃতদেহের কাছে যেতে হয়েছে, কখনো ভাবিনি তাঁর কাছে এভাবে যেতে হবে, এভাবে তাঁকে দেখবো! সবাইকেই যেতে হবে কিন্তু এভাবে কেউ চলে যায়! যেখানেই যান, ভাল থাকুন, শাকিল ভাই!

আপনার মন্তব্য

আলোচিত