আজ রবিবার, ২০ অগাস্ট, ২০১৭ ইং

মধ্যবিন্দুর সিলসিলা

 প্রকাশিত : ২০১৭-০৬-১৮ ১৩:৩২:৪০

লেখক : গোঁসাই পাহ্‌লভী

বিন্দু তো একটাই। উহা নানান জায়গায় বসিয়া নানান অর্থ উৎপাদন করিয়া চলিতেছে। চন্দ্রের উপরে বিন্দু বসিলে এক কথা আবার বিন্দুই হইলো রেখার গঠনসূত্রের প্রথম নিদর্শন।

আমি তোমার ভেতরে সেই বিন্দুরই অন্বেষণ করিয়া থাকি যাহা না হইলে আমার সিন্ধু অপূর্ণতায় থাকে। বাতাসে তোলা ঢেউ যেন তাসের ঘরের মতোই মাঝপথে ভাঙ্গিয়া পড়ে।

শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ-বর্জনের ভেতরেও একটা বিন্দু আছে। এই বিন্দু হরেক রকম মাত্রা সংযুক্ত। যেমন ধরেন আপনি শ্বাস নিলেন আবার ছাড়লেন এই নেয়া এবং ছাড়ার মধ্যে না গ্রহণ না ত্যাগ একটা অবস্থা আছে। এইখানে অবস্থান মানে আপনার গ্রহণ নাই, বর্জনও নাই।

গ্রহণ-বর্জনের জন্মান্তর থেকে আপনি মুক্ত।

‘আমরা যে বায়ু গ্রহণ করিয়া থাকি, তাহা মূলত অক্সিজেন অর্থাৎ জীবনপ্রবাহ। কিন্তু টানিয়া লইবার পরক্ষণেই উহা মৃত্যুপ্রবাহে পরিণত হইয়া থাকে। সুতরাং উহা (Carbon di Oxide) ত্যাগ করিয়া আমরা বাঁচিয়া থাকি।

জীবন ও মৃত্যু প্রতিনিয়ত আমাদের মধ্যে যেমন কার্য করিতেছে, তেমনি জগতের সকল বস্তুর মধ্যেই এ কার্য প্রতিনিয়ত চলিতেছে। ইহা হইতে এক স্থানেই আমরা দুইটি বিরুদ্ধ শক্তির কার্যকারী ক্ষমতার পরিচয় পাইতেছি।

দৈহিক হিসাবে ইহাদের একটি শক্তি অন্তর্মুখী ও অপরটি বহির্মুখী। এই দুইটি বিপরীত শক্তিকে চালাইতেছে কোন শক্তি? আমি যদি একটি দড়ির এক প্রান্ত ধরিয়া টানি এবং অন্যে যদি অপরপ্রান্ত ধরিয়া টানে, তাহা হইলে দেখা যাইবে যে, দুইটি বিরুদ্ধ শক্তি দুই দিক হইতে টানাটানি করিতেছে। একটু চিন্তা করিলে বুঝিতে পারা যাইবে যে দড়িটির মধ্যে যেটি মধ্যকেন্দ্র (middle point ) তাহা আমাদের দুইজনকে একসঙ্গে টানিয়া রাখিয়াছে।

সুতরাং ধরিয়া নেওয়া যায় যে, ঐ মধ্য কেন্দ্রটি দুইটি বিরুদ্ধ শক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করিতেছে।

বিশেষ অনুসন্ধান করিলে দেখা যাইবে যে, আমাদের শ্বাস দেহমধ্যে যতদূর যাইতেছে বলিয়া অনুভব করিতে পারা যায়, সেই স্থানে মেরুদণ্ড মধ্যে একটি মধ্য কেন্দ্র রহিয়াছে-উহাই শক্তিবিন্দু।

এই শক্তিবিন্দুই আমাদের জীবন প্রবাহের উপর কর্তৃত্ব করিতেছে। ঐ শক্তিবিন্দু মূলাধারে এক প্রকার শক্তি বিকাশ করিয়া থাকে (4 dimensions ) এবং এইরূপ স্বাধিষ্ঠানে (6 dimensions) , নাভিচক্রে (10 dimensions ), হৃদয়চক্রে (12 dimensions ) কন্ঠচক্রে (16 dimensions), দ্বিদলচক্রে (2 parallel dimensions) সহস্রারে (Infinite dimensions ) বিভিন্ন শক্তির বিকাশ করিয়া থাকে।

dimensions এখানে কতকটা বিকাশ অর্থে প্রযুক্ত হইয়াছে। এই হিসাবে অর্থে 4 dimensions শক্তির চতুর্মুখী বিকাশ, 10 dimensions অর্থে শক্তির দশর্মুখী বিকাশ এবং Infinite dimensions অর্থে শক্তির অনন্তর্মুখী বিকাশ বুঝিতে হইবে। 2 parallel dimensions অর্থে শক্তির উভয়মুখী ও সমান্তরাল বিকাশ বুঝিতে হইবে।

সেই শক্তিবিন্দু যখন ঊর্ধ্বে উঠিতে থাকে, তখন ক্রমশ শ্বাসপ্রশ্বাসের ক্রিয়া লোপ পাইতে থাকে। যখন সেই শক্তিবিন্দু সহস্রারে ডুবিয়া যায়, তখন শ্বাসপ্রশ্বাসও সম্পূর্ণ লোপ পাইয়া থাকে। (পৃষ্ঠা ৪৮-৪৯, পথহারার পথ ও দ্বাদশ বাণী,বরদাচরণ মজুমদার)। এই সহস্রারকেই নহির সাঁইজী বলেছেন আজরাইল।

গোঁসাই পাহ্‌লভী, ভাস্কর, লেখক।

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আতাহার টিটো আফসানা বেগম আবদুল গাফফার চৌধুরী আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ১৪ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আরশাদ খান আরিফ জেবতিক আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ১১ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইকরাম উদ্দিন খান চৌধুরী ইমতিয়াজ মাহমুদ ২৭ ইয়ামেন এম হক এনামুল হক এনাম ১৬ এমদাদুল হক তুহিন ১৩ এস এম নাদিম মাহমুদ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩০ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী গোঁসাই পাহ্‌লভী ১২ চিররঞ্জন সরকার ৩১ জহিরুল হক বাপি ২৬ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৪৭ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ১৬ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. নুজহাত চৌধুরী তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ১৬ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩১ ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা ফেরদৌসি প্রিয়ভাষিণী বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১০ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ৫১ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম মুহম্মদ জাফর ইকবাল ৬৩ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ৫৩ রাজেশ পাল ১০ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩০ রোবায়েত ফেরদৌস লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১২ শাশ্বতী বিপ্লব শাহরিয়ার কবির শাহাব উদ্দিন চঞ্চল শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২০ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২০ শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১০ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৪ সাব্বির হোসাইন

ফেসবুক পেইজ

আর্কাইভ