আজ শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং

উ. কোরিয়া-জাপান ও রোহিঙ্গায় বাংলাদেশ

 প্রকাশিত : ২০১৭-০৯-১৩ ১১:৪৯:৩৩

লেখক : এস এম নাদিম মাহমুদ

গত দুই বছর ধরে উত্তর কোরিয়া থেমে থেমে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র দেশ জাপানকে উত্তেজিত করছিল। জাপানও বিষয়টি কূটনৈতিক ও জাতিসংঘের আওতায় ফেলে উ. কোরিয়ার বিরুদ্ধে বাণিজ্য ও আন্তর্জাতিকভাবে নিষেধাজ্ঞার খড়গ তুলে আসছিল। যদিও ঘাড়ত্যাড়া উত্তর কোরিয়া আঁতেলের মতো বিষয়টিকে কখনো গুরুত্ব দেয়নি। কারণ এই ভয়ানক ক্ষ্যাপাটে রাষ্ট্রটির ফুয়েল যোগাচ্ছে চীন ও রাশিয়া। কৌশলগতভাবে উত্তর কোরিয়ার সাম্প্রতিক পারমাণবিক শক্তি প্রকাশে ছায়া হিসেবে কাজ করছে চীন। যে দেশটির সাথে উত্তরের ৯৫ ভাগ বাণিজ্য বিকিকিনি হয়। তাই বলা যেতে পারেই, চীন তার আধিপত্য বিস্তার আর যুক্তরাষ্ট্রকে নাকানিচুবানি দেয়ার জন্য উত্তর কোরিয়াকে হস্তগত করে নিজেদেরই অবস্থান জানান দিয়ে চলছে।

অন্যদিকে, রাশিয়াও বিশ্বনেতৃত্ব দেয়ার বিভোর থেকে উ. কোরিয়ার প্রোপাগান্ডাকে উসকে দিয়ে চলছে। এই চলার মধ্যেই গত ৩ সেপ্টেম্বর উত্তর কোরিয়া হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষা চালানোর পর থেকে বিশ্বনেতারা সম্ভবত এই বিষয়টি নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন। দফায় দফায় জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে মিলছে নেতারা। আলোচনায় স্থান পেয়েছে কিভাবে এক ঘরোয়া করা যায়। ঠিক যেন গ্রামে কোন দুষ্টু মানুষকে মোড়লরা শালিসের মাধ্যমে এক ঘরোয়া করার চেষ্টা করে। তেমনি বিশ্ব মোড়লরা উত্তর কোরিয়ার লাগাম টেনে ধরার চেষ্টায় রয়েছে।

কিন্তু চীন ও রাশিয়ার শক্তিশালী ভূমিকার কারণে দফায় দফায় উত্তর কোরিয়ার উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা বস্তুত ভেস্তে গেছে। বিষয়টি বুঝতে পেরে জাপান নতুন একটি কৌশল নিয়েছে। সেটা হলো দেশটি তাদের বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর কাছে এক ধরনের বার্তা পাঠিয়েছে, যেখানে বলা হয়েছে উত্তর কোরিয়ার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করতে। উত্তর থেকে যেন কোন কর্মী বা পণ্য না নেয়া হয় সেই ব্যাপারে অনুরোধ করা হয়েছে।

জাপানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে গতকাল পেরু তাদের দেশ থেকে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত বহিষ্কার করেছে। গত বৃহস্পতিবার মেক্সিকো, গত ৩১ অগাস্ট স্পেন উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করে সেই দেশটির সাথে সম্পর্কে বিচ্ছেদ ঘটিয়েছে।

জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোনও গত সপ্তাহ থেকে মধ্যপ্রাচ্য সফর করছে। এরই মধ্যে কাতারে দেখা করে সেখানে উত্তর কোরিয়া কোন কর্মী নেয়া হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। কাজাকিস্তান ও মিশর সফর করেও তিনি সেই দেশ থেকে একই ধরনের প্রতিশ্রুতি নিয়েছেন।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ভারত সফরে গেছেন। মোদীকেও উত্তর কোরিয়ার সাথে সম্পর্কচ্ছেদ করার অনুরোধ জানাবেন।

যে দেশটির মানুষ খেতে পারে না, যে দেশটি একনায়কত্বের ছোবলে নাগরিকরা অতিষ্ঠ, সেই দেশটি মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার পারমাণবিক শক্তি কিংবা সামরিক শক্তি বৃদ্ধির কাজে লাগাচ্ছে। এমন দেশকে দমন করার জন্য কূটনৈতিকভাবে চাপ প্রয়োগ করা ছাড়া কোন উপায় আছে বলে আমার মনে হয় না। এই ক্ষেত্রে জাপান সফলতার রশি টানছে।

মিয়ানমারের সহিংসতায় যখন বিশ্ব বিবেক নাড়া দিয়ে চলছে, তখন মোড়লরা কানে তুলা আর চোখে দৃষ্টিহীনতার ছাপ নিয়ে চুপচাপ মানবিক বিপর্যয় দেখছে। লাখ লাখ মানুষ যখন খোলা আকাশের নীচে রাত কাটাচ্ছে, তখন চীন ও ভারত মিয়ানমারের ডেরায় রসদের যোগান দিয়ে চলছে। আঞ্চলিক রাজনীতির কবলে হিউম্যানিটি যে আজ বিপন্ন হওয়ার পথে সেই খবর বরাবরই অজানা নয়। বাংলাদেশের মতো একটি ছোট দেশ যে সাহস দেখিয়েছে তা মূর্ছা হওয়ার মতো। এমন দেশ এই সংকট মোকাবেলায় করণীয় ঠিক করতে হয়তো ধারনা দিতে হবে বিশ্বনেতাদের কাছে।

উত্তর কোরিয়ার মতো একটি উন্মাদ রাষ্ট্রনেতাকে শায়েস্তা করতে জাপান যখন কূটনৈতিক তৎপরতা বাড়িয়ে সেই দেশটাকে বিশ্ব কমিউনিটি থেকে আইসোলেট করার চেষ্টা করছে সেখানে আমরাই বা কেন বসে থাকবো? যে দেশটি হাজার হাজার কোন কারণ ছাড়ায় মরছে সেখানে বাংলাদেশের রাষ্ট্র প্রধান সু চি-ইউনূসের শান্তির নোবেলকে হারিয়ে দিয়েছে।

আমি সম্পর্ক ভাঙনের পক্ষে নই, তবে বিরূপ পরিবেশে স্রোতের বিপরীতে না গেলেও খড়কুটা ধরে বেঁচে থাকার পক্ষের লোক। যে দেশটি নির্বিচারে হাজার হাজার শিশুর মুখে বিষাদের ছাপ লেগে দিয়েছে সেই দেশটাকে মানবিক শিক্ষা দিতে আমাদের উচিত জাপানের কৌশলটাকে ফলো করা।

যতক্ষণ পর্যন্ত মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ঘরে ফিরে না নেই ততোক্ষণ পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করে তাদের উপর কূটনৈতিক চাপ শুরু হোক। মালদ্বীপের মতো একটি ছোট দেশ যেখানে শুরু করেছে, সেখানে বাংলাদেশ ভুক্তভোগী হওয়ার পরও কেন চুপ থাকবে? কেন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে চাপা প্রয়োগ করবে না?

বাংলাদেশ যেহেতু রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে রাষ্ট্রের মহত্বকে উন্মুক্ত করেছে সেহেতু সাময়িক কূটনৈতিক সম্পর্কচ্ছেদ করে বিশ্ববাসীকে বুঝিয়ে দিক, আমরা মানবিকতার পক্ষে। আমরা সহিংসতা কিংবা ক্ষমতালোভী নয়। আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্রকে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কথা বলতে তৎপরতা শুরু হোক। জাতিসংঘও আরও বেশি বেশি সু চির কঠোর সমালোচনা করে ‘রোহিঙ্গাদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি’ আদায়ে এগিয়ে আসুক।

সবার পরিচয় হোক মানুষ, অমানুষের মুখোশ পরে শত নোবেল পদদলিত হোক। রোহিঙ্গাদের কান্না থামাতে বিশ্ববাসী ঐক্য গড়ুক।

এস এম নাদিম মাহমুদ, জাপানের ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আতাহার টিটো আফসানা বেগম আবদুল গাফফার চৌধুরী আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ১৪ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আরশাদ খান আরিফ জেবতিক আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ১৩ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইকরাম উদ্দিন খান চৌধুরী ইমতিয়াজ মাহমুদ ২৭ ইয়ামেন এম হক এনামুল হক এনাম ১৬ এমদাদুল হক তুহিন ১৬ এস এম নাদিম মাহমুদ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩০ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী গোঁসাই পাহ্‌লভী ১২ চিররঞ্জন সরকার ৩৩ জহিরুল হক বাপি ২৬ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৪৮ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ১৬ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন ডা. নুজহাত চৌধুরী তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ১৬ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী পুলক ঘটক ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩১ ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা ফেরদৌসি প্রিয়ভাষিণী বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১২ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ৫৪ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম মুহম্মদ জাফর ইকবাল ৬৬ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ৫৩ রাজেশ পাল ১০ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ রোবায়েত ফেরদৌস লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১২ শাশ্বতী বিপ্লব শাহরিয়ার কবির শাহাব উদ্দিন চঞ্চল শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২১ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২০ শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১০ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৪ সাব্বির হোসাইন

ফেসবুক পেইজ

আর্কাইভ