আজ সোমবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং

মন্দির, প্রতিমা ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়

 প্রকাশিত : ২০১৫-১০-০৮ ১৬:০৫:৫৮

লেখক : রেজা ঘটক

চলতি বছর ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীনতার ৪৪তম বিজয় দিবস পালন করবে। দেখতে দেখতেই বাংলাদেশের বয়স এখন ৪৪ বছর। এই ৪৪ বছরে স্বাধীন বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতির কতোটা উন্নতি ঘটেছে, এনিয়ে দেশের ও বিদেশের বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন ও সংস্থা প্রায় প্রতিবছরই রিপোর্ট প্রদান করে থাকে। সেই রিপোর্টে প্রায় প্রতিবছরই একটি ঘটনা সর্বত্র স্থান পায়- বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহৎ জনগোষ্ঠী (মোট জনসংখ্যার শতকরা ৭ ভাগের কম বা বেশি) হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ, এবং মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা।

অর্থাৎ বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণকারীদের সবাই এখনো বাংলাদেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর হামলা ও নির্যাতনের এসব গাণিতিক তথ্য বিচার বিশ্লেষণ করেন। অর্থাৎ বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতি বিবেচনায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনাকেও একটি অবধারিত ভিত্তি ধরা হয়। বিগত ৪৩ বছর ধরে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের মানবাধিকার পরিস্থিতি প্রায় প্রতি বছরই উদ্বেগজনক ছিল। প্রতিবছর শারদীয়া দুর্গাপূজার সময় বাংলাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপাসনালয় বা মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের সংবাদ পত্রিকার পাতায় ছাপা হয়। স্বাধীন বাংলাদেশে কী আমরা একটি বছরও এই কলংক থেকে কখনও রেহাই পেয়েছি?

আগামী ১২ অক্টোবর ২০১৫ বাংলাদেশে শুভ মহালয়া। এই দিন থেকে শুরু হবে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব সার্বজনীন শারদীয়া দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা। কৈলাশের শ্বশুরালয় থেকে মা দূর্গা এই দিন পিতৃগৃহে আগমন করবেন। এই দিন থেকেই বাংলাদেশের বিভিন্ন মন্দিরে দেবী দুর্গার আগমনী বার্তায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ঘরে ঘরে উৎসবের আমেজ শুরু হবে। জাতির মঙ্গল কামনায় সব অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে প্রতিবছর মহালয়ার দিন দেবী দুর্গা শ্বশুরালয় থেকে পিতৃগৃহে আসেন। আসুরিক শক্তির বিনাশ আর পার্থিব শান্তি, কল্যাণ ও সমৃদ্ধি লাভের জন্য হিন্দু সম্প্রদায় যুগ যুগ ধরে মা দুর্গার এভাবেই আরাধনা করে আসছে।

প্রতিবছরের মত এ বছরও শারদীয়া দুর্গা উৎসব উপলক্ষ্যে বাংলাদেশে করা হচ্ছে ব্যাপক আয়োজন। প্রতিবছর বাংলাদেশে পূজা মণ্ডপের সংখ্যা বাড়ছে। এ বছরও বাড়ছে প্রায় ৫ শতাধিক পূজামণ্ডপ। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য এবং উদ্বেগের বিষয় হলো, দেশে প্রতিবছর পূজা মন্ডপের সংখ্যা বাড়লেও ভক্ত বা পূজারীর সংখ্যা কমে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে কমে যাচ্ছে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠী। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা প্রতিবছর পূজামণ্ডপের সংখ্যা বৃদ্ধির বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন কিন্তু পাশাপাশি তাঁরা ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের সংখ্যা কমে যাওয়ার বিষয়টি নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করছেন।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, আগামী ১২ অক্টোবর শুভ মহালয়া অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সারাদেশে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। এছাড়া আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে শারদীয় দুর্গোৎসবের মূল পূজা শুরু হবে। ১৮ অক্টোবর মহাষষ্ঠীতে বেদীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ, ১৯ অক্টোম্বর মহাসপ্তমীতে সকালে মহাসপ্তমী পূজা, সন্ধি পূজা, ২০ অক্টোবর মহাষ্টমীতে সকালে দেবীর মহাষ্টমী পূজা আরম্ভ, রাত ১১টা থেকে ১১টা ৫২ মিনিটে সন্ধি পূজা, ২১ অক্টোবর মহানবমীতে পূর্বাহ্নে দেবীর মহানবমী পূজা সমাপন ও ২২ অক্টোবর শুভ বিজয়ায় সকাল ৯টা ৫৩ মিনিটে দশমী পূজা আরম্ভ এবং সকাল ১০টা ৫১ মিনিটে পূজা সমাপন ও রাতে প্রতিমা বিসর্জন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব শেষ হবে।

এবছর সারাদেশে অন্তত সাড়ে ২৮ হাজার থেকে ২৯ হাজারের কাছাকাছি দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে আশা প্রকাশ করছেন পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা। পরিষদের তথ্য মতে, ২০১৪ সালে সারাদেশে ২৮ হাজার ৩৫৮টি, ২০১৩ সালে ২৮ হাজার ২০০টি, ২০১২ সালে ২৭ হাজার ৮শ’টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাষ্ট্রীয়ভাবে আমরা প্রায় প্রতিবছরই প্রচার করি- ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। আমাদের মহান সংবিধানে যদিও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম রাখা হয়েছে (দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা ৯১ ভাগের বেশি মুসলিম সম্প্রদায়) কিন্তু সেখানে সুস্পষ্টভাবে আলাদা কোটেশানে উল্লেখ করা হয়েছে, দেশের সকল নাগরিক নিজ নিজ ধর্ম পালন করতে পারবেন। অথচ প্রতিবছর সার্বজনীন শারদীয়া দুর্গাপূজার সময় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের সংবাদ আসে। যা পুরো শারদীয়া দুর্গা উৎসবের যেন এক চিরায়ত কলংকময় অধ্যায়। বাংলাদেশের বয়স ৪৪ হয়ে যাচ্ছে কিন্তু এই কলংক থেকে বাংলাদেশের এখনো মুক্তি মেলেনি!!

গতকাল পত্রিকায় দেখলাম সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর ইউনিয়নের কর্মকারপাড়া সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরে ১৫টি প্রতিমা ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। শারদীয়া দুর্গাপূজা যতই কাছে আসছে মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের খবরও যেন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। চলতি বছর বাংলাদেশে মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের এখন পর্যন্ত কয়টি ঘটনা ঘটেছে এই মুহূর্তে সেই তথ্যটি জানা না গেলেও মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা যে থেমে নেই, উদ্বেগের জায়গাটি সেখানে। অন্যান্য বছরের মতো এবারো রাজধানী ঢাকার পূজামণ্ডপগুলোর নিরাপত্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পূজা কমিটি সূত্র জানায়, সার্বিক নিরাপত্তার জন্য পুলিশ, র‌্যাব ও গোয়েন্দা পুলিশ মোতায়েন করা হবে। কিন্তু প্রশ্ন হলো, সারাদেশে শারদীয়া দুর্গা উৎসবের সময় মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের এত ঘটনা ঘটার পরেও রাষ্ট্র কেন সার্বিক নিরাপত্তায় আগে থেকেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে মোতায়েন করে না?

মূলত শারদীয়া দুর্গাপূজার ব্যাপারটি শুরুই হয় নতুন প্রতিমা তৈরি/গড়ার শুরুর দিন থেকে। সেক্ষেত্রে নিরাপত্তা দেবার বিষয়টি কেন তখন থেকেই ভাবা হয় না? সাধারণত প্রতিমা তৈরি করার কাজটি অন্তত শুভ মহালয়ার পনেরো/বিশ দিন আগে থেকেই শুরু হয়। কিন্তু আমরা দেখেছি, প্রতিবছর রাষ্ট্রীয়ভাবে শারদীয়া দুর্গাপূজায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নিরাপত্তার জন্য মোতায়েন করা হয় মহাষষ্ঠী থেকে। আর এই সুযোগটি কাজে লাগিয়েই দুর্বৃত্তরা প্রতিমা ভাঙচুরের কাজটি আগেই সেরে ফেলে। কোথাও কোথাও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়মিত টহলের ফাঁক গলিয়েও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। কোথাও কোথাও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অনুপস্থিতির কারণেও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। অর্থাৎ মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনাকে কোনোভাবেই রাষ্ট্র বন্ধ করতে পারছে না। বন্ধ করতে পারছে না, না বলে বলা উচিত, মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার লক্ষ্যই রাষ্ট্রীয়ভাবে এখনো পরিলক্ষিত হয় না।

সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির গণমাধ্যমকে বলেছেন, 'আশাশুনির প্রতাপনগর কর্মকারপাড়ার প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনাটি একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা। এই ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা হবে।' আমি পুলিশ সুপারের এই বক্তব্যের সঙ্গে মোটেও একমত নই। প্রতিবছরই মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটবে আর আপনারা যারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে, দায়সারা গোছের এভাবে 'বিচ্ছিন্ন ঘটনা' বলে সেই দায় এড়াতে পারেন না। রাষ্ট্র এই দায় এড়াতে পারে না। দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম সম্প্রদায়ও এই দায় এড়াতে না। বাংলাদেশের কোনো দায়িত্বশীল নাগরিকই এই ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না। তাহলে রাষ্ট্র কেন প্রতিমা তৈরি করার শুরু থেকেই মন্দির ও পূজামন্ডপের সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্ব নেয় না? যে ঘটনাটি দীর্ঘ ৪৩ বছরের একটি ধারাবাহিক অপরাধ, সেই অপরাধটি কিভাবে বিচ্ছিন্ন ঘটনা হয়? হ্যাঁ পুলিশ সুপারের সঙ্গে আমি একমত হতাম, যদি স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৩ বছরে এটি কেবল একটিমাত্র ঘটনা হতো, তাহলে এটাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলার সুযোগ ছিল। কিন্তু একই ঘটনা তো প্রতিবছরই ধারাবাহিকভাবে ঘটছে। আর আপনারা একই কাসুন্দি বলে সেই দায় এড়াতে চাইছেন। সেই কাসুন্দির নাম 'বিচ্ছিন্ন ঘটনা'!

চলতি বছর ১১ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে বাগেরহাটের মোল্লাহাট উপজেলার আটজুড়ি ইউনিয়নের কাঠাজোড়া গ্রামের বিশ্বাসবাড়ি সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরের প্রতিমায় অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর করেছিল দুর্বৃত্তরা। সেই ঘটনার কী কোনো বিচার হয়েছে? সেই ঘটনায় কী আজ পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়েছে? আইন ও সালিশ কেন্দ্রের এক রিপোর্টে দেখলাম, চলতি বছর জানুয়ারি থেকে আগস্ট ২০১৫ পর্যন্ত সারা দেশে অন্তত ১০৩টি হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এই সময়ের মধ্যে ৬টি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এই সময়ের মধ্যে ১৪১টি মন্দিরে এবং মন্দিরে রক্ষিত প্রতিমা ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। আর এই সময়ের মধ্যে অন্তত ৪২ জন হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের উপর নির্যাতন বা বলপ্রয়োগ করে আহত করা হয়েছে। সাতক্ষীরার আশাশুনির প্রতাপনগর কর্মকারপাড়ার প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা যদি বিচ্ছিন্ন ঘটনা হয়, তাহলে সারা দেশে চলতি বছর জানুয়ারি থেকে আগস্ট মাসের মধ্যে মাত্র আট মাসে কিভাবে ১৪১টি মন্দিরে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে? কোনটাকে আপনি বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে দায় এড়াবেন মিস্টার পুলিশ সুপার?

প্রতিবছর দেশে শারদীয়া দুর্গাপূজায় পূজামণ্ডপের সংখ্যা বাড়লেও পূজারীর সংখ্যা কমছে, পাশাপাশি ক্রমবর্ধমান হারে কমছে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠী। এটি বাংলাদেশের সার্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতির জন্য একটি উদ্বেগজনক সংবাদ।এটি যা প্রমাণ করে, সেটি হলো, বাংলাদেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নিরাপত্তাহীনতার কারণে দেশ ছাড়ছেন। তাঁদের বাড়িঘরে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটছে। তাঁদের বিরুদ্ধে বলপ্রয়োগ করে ব্যবসা, বাড়িঘর, সম্পত্তি লুটপাটের ঘটনা ঘটছে। তাঁদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও মামলার হুমকি বাড়ছে। তাঁদের ধর্মীয় উপাসনালয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটছে। যে কারণে নিরাপত্তাহীন অসহায় পরিবারগুলো বাপ-দাদাদের চৌদ্দ গোষ্ঠীর জন্মভিটা ছেড়ে দেশ ত্যাগ করতে বাধ্য হচ্ছে। সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়, রাষ্ট্র স্বয়ং এই বিষয়কে তেমন গায়ে লাগাচ্ছে না। বরং কখনও কখনও রাষ্ট্রের মন্ত্রী, সাংসদ, জনপ্রতিনিধিনিধি বা তাদের সাঙ্গপাঙ্গদের বিরুদ্ধে পত্রিকায় এই হামলা ও মামলার খবর প্রকাশিত হলেও কোনোটির আজ পর্যন্ত বিচার হয়নি।

একদিকে সংখ্যালঘুদের উপর হামলা ও নির্যাতন বন্ধ হচ্ছে না। অন্যদিকে সেই হামলা ও নির্যাতনের কোনো বিচারও হচ্ছে না। এক বিচারহীনতার সংস্কৃতিই যেন আজকের ৪৪ বছরের বাংলাদেশের এক জঘন্য কলংকে পরিণত হয়েছে। সংখ্যালঘুদের উপর হামলা ও নির্যাতনের বিচারপ্রক্রিয়া যেন হাজার বছরেও শেষ হবে না, এমন একটি সংস্কৃতি এখন বাংলাদেশে বিদ্যমান। যেটি সত্যি সত্যিই বড় উদ্বেগের বিষয়। রাষ্ট্রের প্রতিটি নাগরিক, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র, শ্রেণী বা যে কোন গোষ্ঠীরই হোক, সবার সার্বিক নিরাপত্তা রক্ষা করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। বাংলাদেশে যে রাজনৈতিক দল যখনই ক্ষমতায় আসুক না কেন, সংখ্যালঘুদের ব্যাপারে তাদের যেন এই জায়গাটিতে একটি ইচ্ছাকৃত দায়িত্বহীনতার দৃষ্টান্ত পরিলক্ষিত হয়। আশ্চার্যজনক সত্য হলো, সবার ক্ষেত্রেই এখানে একটা বড় ধরনের সাদৃশ্য রয়েছে। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে দেশের দ্বিতীয় বা তৃতীয় বা চতুর্থ শ্রেণীর নাগরিক মনে করার মত একটি প্রচ্ছন্ন ব্যাপার এখানে দৃশ্যমান। বাংলাদেশের বাস্তব পরিস্থিতি এই ঘটনার সাক্ষ্য দেয়। দেশের সংখ্যালঘুদের উপর হামলা ও নির্যাতনের ঘটনা এর সাক্ষ্য দেয়। যার দায় রাষ্ট্র কিছুতেই এড়াতে পারে না।

আমরা চাই, বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিক সমান সুযোগ সুবিধা পাবে। ধর্ম, বর্ণ, গোত্র, শ্রেণী, গোষ্ঠী, বা সম্প্রদায় যা-ই হোক না কেন, আইন যেমন সবার জন্য সমান হবে, রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা, ধর্মীয় স্বাধীনতা, বাক-স্বাধীনতা, সাংস্কৃতিক স্বাধীনতা, সংগঠন করার স্বাধীনতা, উৎসব করার স্বাধীনতা সবার বেলায় সমান হবে। এখানে কোনো ধরনের বৈষম্য করা যাবে না। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি, বাংলাদেশে অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে সংখ্যালঘু নিধনে প্রতিটি সরকার নিরবে সক্রিয় থেকেছে। যে কারণে স্বাধীনতার ৪৩ বছর পরেও আমরা মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা দেখতে পাচ্ছি। আর রাষ্ট্র এখানে সার্বিক নিরাপত্তা দিতে বারবার ব্যর্থ হচ্ছে। যা বাংলাদেশের জন্য মোটেও কোনো সুখবর নয়। তাহলে আবারও সেই প্রশ্নটি আসে, আমরা কী এই বাংলাদেশ চেয়েছিলাম?

শারদীয়া দুর্গা উৎসব সবার। দুর্গা পূজা হয়তো কেবল সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পালন করবেন। কিন্তু শারদীয়া দুর্গা উৎসব তো বাংলাদেশের সবার। আমাদের কেন এখনো স্বাধীনতার ৪৪ বছরে এসেও মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের সংবাদে উদ্বেগ হতে হবে? তাহলে রাষ্ট্র আসলে করছেটা কী? আমি হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনার তীব্র নিন্দা প্রকাশ করছি। পাশাপাশি সরকারের কাছে অনুরোধ করছি, যেসব দুর্বৃত্ত এর সঙ্গে জড়িত, তাদের আইনের কাছে সমর্পন করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করুন। নইলে লোক দেখানে সার্বজনীন উৎসবে কোথায় যেন একটা অসুরীয় ব্যাপার ঘাপটি মেরে থাকে, যা কোনোদিন জাতির সর্বিক মঙ্গল করতে পারে না। একটা কলংক যেন আড়ালে থেকেই যায়। আমরা কলংকমুক্ত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখি। আমরা ১৬ কোটি মানুষ কী সেই স্বপ্নের বাংলাদেশের কথা ভাবতে পারি না?

রেজা ঘটক, সাহিত্যিক, নির্মাতা

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। sylhettoday24.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে sylhettoday24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।

আপনার মন্তব্য

লেখক তালিকা অঞ্জন আচার্য অসীম চক্রবর্তী আজম খান ১০ আজমিনা আফরিন তোড়া আতাহার টিটো আফসানা বেগম আবদুল গাফফার চৌধুরী আবু এম ইউসুফ আবু সাঈদ আহমেদ আব্দুল করিম কিম ১৫ আব্দুল্লাহ আল নোমান আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল আমিনা আইরিন আরশাদ খান আরিফ জেবতিক আরিফ রহমান ১৪ আরিফুর রহমান আলমগীর নিষাদ আলমগীর শাহরিয়ার ১৭ আশরাফ মাহমুদ আশিক শাওন ইকরাম উদ্দিন খান চৌধুরী ইমতিয়াজ মাহমুদ ২৭ ইয়ামেন এম হক এনামুল হক এনাম ১৯ এমদাদুল হক তুহিন ১৮ এস এম নাদিম মাহমুদ ১২ ওমর ফারুক লুক্স কবির য়াহমদ ৩০ কাজল দাস ১০ কাজী মাহবুব হাসান খুরশীদ শাম্মী গোঁসাই পাহ্‌লভী ১২ চিররঞ্জন সরকার ৩৫ জফির সেতু জহিরুল হক বাপি ২৬ জহিরুল হক মজুমদার জান্নাতুল মাওয়া জাহিদ নেওয়াজ খান জুয়েল রাজ ৪৮ ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ড. কাবেরী গায়েন ১৭ ড. শাখাওয়াৎ নয়ন তপু সৌমেন তসলিমা নাসরিন তানবীরা তালুকদার দিব্যেন্দু দ্বীপ দেব দুলাল গুহ দেব প্রসাদ দেবু দেবজ্যোতি দেবু ১৬ নিখিল নীল পাপলু বাঙ্গালী ফকির ইলিয়াস ২৪ ফজলুল বারী ফড়িং ক্যামেলিয়া ফরিদ আহমেদ ৩১ ফারজানা কবীর খান স্নিগ্ধা ফেরদৌসি প্রিয়ভাষিণী বন্যা আহমেদ বিজন সরকার বিপ্লব কর্মকার ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ১৪ ভায়লেট হালদার মারজিয়া প্রভা মাসকাওয়াথ আহসান ৫৭ মাসুদ পারভেজ মাহমুদুল হক মুন্সী মিলন ফারাবী মুনীর উদ্দীন শামীম মুহম্মদ জাফর ইকবাল ৭১ মো. মাহমুদুর রহমান মো. সাখাওয়াত হোসেন মোছাদ্দিক উজ্জ্বল মোনাজ হক রণেশ মৈত্র ৫৩ রাজেশ পাল ১১ রুমী আহমেদ রেজা ঘটক ৩২ লীনা পারভীন শওগাত আলী সাগর শাখাওয়াত লিটন শামান সাত্ত্বিক শামীম সাঈদ শারমিন শামস্ ১২ শাশ্বতী বিপ্লব শাহাব উদ্দিন চঞ্চল শিবলী নোমান শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ ২৪ শেখ মো. নাজমুল হাসান ২১ শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী সঙ্গীতা ইমাম সঙ্গীতা ইয়াসমিন ১০ সহুল আহমদ সাইফুর মিশু সাকিল আহমদ অরণ্য সাব্বির খান ২৪ সাব্বির হোসাইন সাহাদুল সুহেদ সুপ্রীতি ধর সুশান্ত দাস গুপ্ত

ফেসবুক পেইজ

আর্কাইভ